কিভাবে বাড়িকে এবং নিজেকে জীবানু মুক্ত রাখতে হয়

কিভাবে বাড়িকে এবং নিজেকে জীবানু মুক্ত রাখতে হয়

আমরা প্রায় সবাই আমাদের নিজের বাড়িকে পরিস্কার সুন্দর রাখতে চাই পরিস্কার রাখা মানে যে  জীবানু মুক্ত বাড়ি , তা কিন্তু নয় বাড়িকে জীবানুমুক্ত রাখতে বেশি খরচ হয় না বা বেশি সময়েরও প্রয়োজন নেই বিশেষজ্ঞদের মত অনুযায়ী বাড়ির ৬টা জায়গায় বিশেষ নজর দিলে বাড়িকে পরিস্কার জীবানু মুক্ত রাখা যায়

  1. রান্নাঘর বা Kitchen: রান্নাঘরে প্রচুর জীবানু বাসা বাঁধতে পারে যদি যে জায়গার উপর রান্না করা হয় , সিন্ক বা যেখানে সব ধোয়া হয় , স্পঞ্জ বা যা দিয়ে বাসন ধোয়া হয় , যা দিয়ে রান্না করতে করতে হাত মোছা হয় , যে কাপড় দিয়ে রান্নাঘর পরিস্কার করা হয় , রান্নাঘরে রাখা যে পাত্রে উছিস্ট সব ফেলা হয় ঠিকমত পরিস্কার না করা হয় প্রতিদিন সাবান জলে ভালো করে পরিস্কার করা সপ্তাহে কমপক্ষে একদিন জীবানু প্রতিরোধকারী দ্রবণ ব্যবহার করা উচিত এক চা চামচ ব্লিচের সাথে জল মিলিয়ে সিন্কের মধ্যে ফেললে নালী ঠিকমত পরিস্কার হয়ে যাবে
  2. শাক সবজি কাটার পাটা বা Cutting Board : কাঁচ বা প্লাস্টিকের বোর্ড ব্যবহার করা উচিত কারণ এগুলোতে নীরন্ধ্র বা non porous হয় ব্যবহারের পর সাবান জল এবং গরম জলে ধুয়ে নেওয়া উচিত ব্লিচের সাথে জল মিশিয়ে মিশ্রন তৈরী করে মাঝে মাঝে এই মিশ্রণ দিয়ে ধোয়ার পর গরম জলে ধুয়ে নিলে পুরোপুরি জীবানু মুক্ত হয় কারণ জীবানু লুকিয়ে থাকতে পারে ছুরি দিয়ে কাটার ফলে যে খাঁজ তৈরী হয় তার মধ্যে
  3. দাঁত মাজার ব্রাস বা Tooth Brush : দাঁত মাজার পর ভালো করে ব্রাশ ধুয়ে শুকনো বন্ধ কিছুর মধ্যে রাখা উচিত কারণ খোলা জায়গায় রাখলে যে কোনো মুহূর্তে জীবানু বাসা বাঁধতে পারে
  4. ইলেক্ট্রনিক জিনিষ বা Electronic items : যে সব ইলেক্ট্রনিক জিনিষ যেমন মোবাইল ফোন , কম্পুটারের মাউস বা কিবোর্ড মানে যেগুলো খুব বেশি ব্যবহার করা হয় সেগুলো সবসময় পরিস্কার শুখনো রাখা উচিত যাতে জীবানু বাসা বাঁধতে না পারে
  5. স্নানঘর টয়লেট বা Bathroom and Toilet : এই দুটো ভালো করে সবসময় পরিস্কার রাখা উচিত কারণ এরা জীবানুর আঁতুর ঘর
  6. জুতো বা Shoes : জুতোর সাথে যে জীবানু আসে তাকে ঘরের বাইরে রাখা ভালো জুতো দরজার বাইরে খুলে পা পরিস্কার করে ঘরে ঢোকা উচিত
  7. সকালে ঘুম থেকে উঠে মলত্যাগ করার পর আর খাওয়ার বা খাবার তৈরী করার আগে সবসময় সাবান দিয়ে ভালো করে হাত ধুতে হবে হাত ধোবার জন্য মাটি বা কাদা ব্যবহার করা কখন উচিত নয়
  8. প্রায়ই স্নান করা উচিত বিশেষ করে গরম জলে রোজ কঠিন পরিশ্রমের পর বা ঘেমে যাওয়ার পর অবশ্যই স্নান করা উচিত প্রতিদিন ভালো করে স্নান করলে চামড়ার সংক্রমন , খুসকি , ব্রণ ,চুলকানি আর rash এড়ানো যায়
  9. যে সব অঞ্চলে বেশি হুকওয়ার্ম আছে সেখানে খালি পায়ে ঘোরা একদম উচিত নয় কারণ এই ক্রিমিগুলো পায়ের পাতার চামড়া দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে  হুকওয়ার্মের সংক্রামন থেকে সাংঘাতিক রক্তাল্পতা হয়
  10. প্রতিদিন আর প্রতিবার মিষ্টি খাওয়ার পর দাঁত মাজা উচিত টুথব্রাশ আর পেস্ট যদি না থাকে তাহলে লবন আর খাওয়ার সোডা দিয়ে দাঁত পরিস্কার করে নেওয়া যেতে পারে
  11. বাড়ির পোষা জন্তুদের যদি জীবানু মুক্ত না করা থাকে তাহলে কখনই তাদের চাটতে বা বিছানায় ওঠতে দেওয়া উচিত নয়
  12. যদি বাড়ির কাছে ছোটরা বা কোনো পশুপাখি মলত্যাগ করে , তখনি সেটা পরিস্কার করা উচিত ছোটদের ধীরে ধীরে পায়খানা ব্যবহার করা শেখানো উচিত
  13. চাদর আর কম্বল প্রায়ই রোদে দেওয়া উচিত যদি বিছানায় ছারপোকা থাকে তবে একই দিনে ফুটন্ত গরম জলে খাট , চাদর আর কম্বল কেচে ফেলা উচিত

  14. উকুন থাকলে সাথে সাথে চিকিত্সা করানো উচিত

  15. মাটিতে থুতু ফেলা উচিত নয় কারণ থুতু থেকে রোগ ছড়াতে পারে কাশবার বা হাঁচবার সময় মুখটা নিজের হাত বা রুমাল দিয়ে ঢেকে নেওয়া উচিত
  16. মেঝে , দেওয়াল আসবাব পত্রের নিচটা ভালো করে পরিস্কার রাখা উচিত যদি দেওয়ালে বা মেঝেতে কোনো গর্ত থাকে তাহলে যত তারাতারি সম্ভব বুজিয়ে ফেলা উচিত কারণ গর্তে নানারকম পোকা মাকড় লুকিয়ে থাকতে পারে
  17. পোকা মাকড় দূর করতে কাঁচা বাড়ি নিয়মিত কাদা দিয়ে নিকিয়ে নেওয়া উচিত
  18. পরিস্কার জল সরবরাহের ব্যবস্থা না থাকলে সব জলটাই খাবার আগে ফুটিয়ে নেওয়া সবথেকে ভালো ফোটানো জল সবসময় পরিস্কার পাত্রে ঢাকা দিয়ে রাখা উচিত
  19. মাছি বা অন্য পোকামাকড় খাবারে বসতে বা ঘুরে বেড়াতে দেওয়া ঠিক নয় কারণ এইসব পোকামাকড় জীবানু নিয়ে আসে আর রোগ ছড়ায় খাবার ঢেকে রেখে বা জালের আলমারিতে রেখে পোকামাকড় থেকে রক্ষা করা উচিত খাবার খাওয়া হয়ে গেলে বাসন ধুতে না পারলে শুধু জল দিয়ে ধুয়ে রাখা উচিত তা না হলে টুকরো খাবারে মাছি আসে এবং জীবানু জন্মায় ।

  20. চেষ্টা করা উচিত আ-ঢাকা খাবার কখনো না খাওয়া ।
  21. খাবার আগে সবসময় তরিতরকারি ফল ভলো করে ধুয়ে নেওয়া উচিত।
  22. বাসি দুর্গন্ধযুক্ত খাবার না খাওয়া টিন ফুলে গেলে বা কাটবার সময় তার থেকে পিচকারি দিয়ে কিছু বেরোলে সেই টিনের খাবার খাওয়া উচিত নয়

Please visit my You tube channel : https://www.youtube.com/cha…/UCwI8JNW7FmslSEXnG6_GAgw/videos

3 thoughts on “কিভাবে বাড়িকে এবং নিজেকে জীবানু মুক্ত রাখতে হয়

  1. Apurba Neogi
    Very nice and important Tips to keep our house and ourselves free of germs
    Arabinda Chatterjee
    খুব ভালো information। ধন্যবাদ
    Pradip Kumar Das
    Very good advice
    Abanikumar Banerjee
    Good job ! Supriyo !
    Shubhranshu Mohan Banerji
    Cleanliness is a culture and it’s practice is a form of worship.
    Surja Ghosh
    Well done.
    Swapan Dattaray
    nice .

    Liked by 1 person

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s